ফ্রিল্যান্সিং ও রিমোট জব

৫০০ শ্রেণির ফ্রিল্যান্স ও রিমোট কাজের খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে এই ওয়েবসাইটে।

রিমোট জব : সুযোগ নিন বৈশ্বিক চাকরির বাজারে

স্বল্প সময়ের জন্য চুক্তি করে যেকোনোকাজ করে দেওয়া হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। এই চুক্তি হতে পারে ঘণ্টা ভিত্তিক, দিন ভিত্তিক, মাস ভিত্তিক অথবা প্রজেক্ট ভিত্তিক। বাসায় কোন সমস্যা হলে আমরা যে মিস্ত্রি ডেকে আনি, তারাও ফ্রিল্যান্সার। স্বল্প সময়ের জন্য যে আইনজীবীকে হায়ার করি, তারাও ফ্রিল্যান্সার। তাদের এই কাজগুলোকেও ফ্রিল্যান্সিং বলা যায়। সাধারণত ফ্রিল্যান্সিং বলতে কোন একটা কোম্পানি বা কোন একজন ব্যক্তির অধীনে না থেকে স্বাধীনভাবে কাজ করাকে বুঝায়।

তবে আমরা বর্তমানে কম্পিউটারের মাধ্যমে কোন প্রজেক্ট কাজ করাকে ফ্রিল্যান্সিং হিসেবে বুঝে থাকি। বর্তমানে বলা যায় প্রায় সব ধরনের কাজই কম্পিউটারের মাধ্যমে করা যায়। যেমন সফটওয়ার বা ওয়েব ডেভেলপেমেন্ট, ডিজাইনিং, মার্কেটিং, লেখালেখি, কনসালটেন্সিসহ হাজার রকমের কাজ রয়েছে, যেগুলো অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং হিসেবে করা যায়।

আপনার যদি স্বাধীনতা পছন্দ হয়, নিজ বাসায় বা যে কোন স্থান থেকে কাজ করতে ভালো লাগে, তাহলে freelancing করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং কেন করবেন, তা নিয়ে বিস্তারিত একটি লেখা লিখেছি। চাকরি করা ছাড়াও সুন্দর আয় করা, স্বাধীন জীবন এবং অন্যান্য।

একজন ফ্রিল্যান্সার কেমন আয় করতে পারে, তা অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে। যেমন স্কিল সেট, এক্সপেরিয়েন্স, কত সময় কাজ করছে ইত্যাদি। যেমন একজন ডেটা এন্ট্রি অপারেটর থেকে একজন অনলাইন মার্কেটার বেশি আয় করবে। এটাই স্বাভাবিক। কারণ ডেটা এন্ট্রি অপারেটর থেকে একজন অনলাইন মার্কেটারের স্কিল সেট বেশি ও মূল্যবান।

আপওয়ার্কে বিভিন্ন ক্যাটেগরি অনুযায়ী একজন ফ্রিল্যান্সার এভারেজ কেমন ইনকাম করে, তা দেখলে আমরা একটা আইডিয়া পেতে পারি।

  • লেখক: একজন লেখক প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 30-40 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 42,000 ডলার আয় করে থাকেন।
  • এডিটর: একজন এডিটর প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 25-35 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 40,000 ডলার আয় করে থাকেন।
  • প্রোগ্রামার: একজন প্রোগ্রামার প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 60-70 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 120,000 ডলার আয় করে থাকেন।
  • ডেভেলপার (সফটওয়ার, মোবাইল, ওয়েব): একজন ডেভেলপার প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 50-60 ডলার আয় করেন। বছরে প্রায় 100,000 ডলার আয় করে থাকেন।
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনার: একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 40-45 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 90,000 ডলার আয় করেন।
  • অনলাইন মার্কেটার: একজন অনলাইন মার্কেটার প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 50-60 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 100,000 ডলার আয় করেন।
  • ফটোগ্রাফার: একজন ফটোগ্রাফার প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 35-45 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক প্রায় 42,000 ডলার আয় করেন।
  • CRM ম্যানেজার: একজন CRM ম্যানেজার (Customer Relations Manager) প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 50-60 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক সাধারণত প্রায় 120,000 ডলার আয় করেন।
  • ডেটা এনালিস্ট: একজন ডেটা এনালিস্ট প্রতি ঘণ্টায় এভারেজ 55-65 ডলার আয় করেন। বাৎসরিক সাধারণত প্রায় 100,000 ডলার আয় করেন।

উপরে কয়েকটা কমন স্কিলের আর্নিং সম্পর্কে একটা ধারণা দেওয়া হয়েছে। এই ডেটা গুলো আপওয়ার্কের অফিশিয়াল ব্লগ পোস্ট থেকে নেওয়া। এগুলো হচ্ছে এভারেজ ফ্রিল্যান্সারদের তথ্য। কিছু ফ্রিল্যান্সার এর থেকে বেশি আয় করে। আবার কিছু ফ্রিল্যান্সার এর থেকে কম আয় করে। মূল লক্ষ্য ছিল ফ্রিল্যানিং করে কেমন আয় করা যায়, তা দেখানো। আমার ধারণা উপরের ডেটা থেকে অনলাইন আর্নিং সম্পর্কে আপনাদের একটা স্পষ্ট ধারণা হয়েছে।

গেল কয়েক বছর ধরেই ফ্রিল্যান্সিং ও ঘরে বসে দূরের কাজ বা চাকরি (রিমোট জব) করার ধারণা সারা পৃথিবীতে জনপ্রিয় হয়েছে। ফ্রিল্যান্স কাজ ও রিমোট জবের মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে। বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত কাজ দূরবর্তী কোনো জায়গা থেকে করাকে রিমোট জব বলে। এককথায় রিমোট জবে আপনি কোনো প্রতিষ্ঠানে কর্মী হিসেবে কাজ করবেন, কিন্তু নিয়মিত অফিসে যেতে হবে না। করোনা মহামারির সময়ে রিমোট জবের বিকাশ বড় আকারে দেখা যায়।

যুক্তরাষ্ট্রে রিমোট জব ২০২০ সাল থেকে বর্তমানে প্রায় ২৮ শতাংশ বেড়েছে। এখন পশ্চিমা দুনিয়ায় হাইব্রিড মানে সরাসরি অফিস ও রিমোট জবের সমন্বয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজের মাত্রা বেড়েছে। ইউরোপের বিভিন্ন দেশ এবং ভারত, ফিলিপাইন, দক্ষিণ আফ্রিকাসহ বাংলাদেশের মতো দেশে আগামী পাঁচ বছরে রিমোট জবের সংখ্যা বাড়বে বলে বাজার বিশ্লেষকদের ধারণা। ইনসাইডার মাঙ্কি এখন জনপ্রিয় এমন ২৫টি ওয়েবসাইটের নাম প্রকাশ করেছে যেখান থেকে দক্ষতা অনুসারে কাজের খোঁজ পাওয়া যাবে।

ফ্রিল্যান্সারম্যাপ
ফ্রিল্যান্সারম্যাপে ১২ হাজারের বেশি রিমোট জবের সুযোগের খোঁজ পাওয়া যায়। এখন আলোচিত হলেও ওয়েবসাইটটি প্রায় ১৭ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত। ফ্রিল্যান্সার ও বিভিন্ন কোম্পানির মধ্যে সংযোগ তৈরির জন্য কাজ করছে ওয়েবসাইটটি। সাইটটির প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা মুক্ত পেশাজীবী বা ফ্রিল্যান্সারদের উপযুক্ত কাজ সম্পর্কে সরাসরি অবহিত করছে। প্রায় ২৭ হাজারের বেশি প্রতিষ্ঠান এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজের জন্য কর্মী সংগ্রহ করেছে।

টপটাল
টপটাল আরেকটি ফ্রিল্যান্সিং কাজ পাওয়ার ওয়েবসাইট। বিশ্বব্যাপী রিমোট জবের জন্য অন্যতম একটি প্রতিষ্ঠান। সফটওয়্যার প্রকৌশল, ডিজাইন, ফিন্যান্স, পণ্য ব্যবস্থাপনার কাজ করেন এমন পেশাদারদের সঙ্গে কাজের সুযোগ করে দিচ্ছে। ভারতে জনপ্রিয় রিমোট জব খোঁজার অন্যতম জনপ্রিয় সাইটের একটি টপটাল। টপটাল হলো ব্যবসা, ডিজাইন এবং প্রযুক্তি খাতে বিশ্বের শীর্ষ কর্মীদের একটি নেটওয়ার্ক হিসেবে দাবি করে। বিভিন্ন কোম্পানিতে চাহিদা অনুযায়ী কর্মীদের সুযোগ করে দিচ্ছে টপটাল।

ল্যান্ডিং জবস
ল্যান্ডিং জবস ওয়েবসাইটে রিমোট জব প্রার্থীরা সহজেই সাইন-আপ করতে পারেন। কর্মীরা নিজের অভিজ্ঞতা অনুসারে সরাসরি দক্ষতা দেখানোর সুযোগ পান। নিয়োগকর্তাদের সঙ্গে সরাসরি দৈনিক পারিশ্রমিকে কাজের সুযোগ আছে। আইটিবিষয়ক কাজের হাব হিসেবে জনপ্রিয় ল্যান্ডিং জবস। বিভিন্ন কোম্পানির জন্য সরাসরি বিশ্বের নানা দেশে ৫০ লাখের বেশি প্রযুক্তি পেশাদারদের সঙ্গে সংযুক্ত করছে এই ওয়েবসাইট।

আউটসোর্সলি
আউটসোর্সলি আরেকটি আকর্ষণীয় ওয়েবসাইট। ফ্রিল্যান্সারদের জন্য এই ওয়েবসাইটে কোনো ধরনের ফি জমা দিতে হয় না। নিয়োগকর্তাদের জন্য আউটসোর্সলি কর্মী সংগ্রহের বড় একটি মাধ্যম। বিশ্বের ১৮০টির বেশি দেশ থেকে কর্মীদের খুঁজে দিচ্ছে ওয়েবসাইটটি।

ওয়েলফাউন্ড
আরেকটি জনপ্রিয় সাইট ওয়েলফাউন্ড। প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজারের বেশি রিমোট জবের সুযোগ আছে এখানে। এই ওয়েবসাইট আগে অ্যাঞ্জেললিস্ট ট্যালেন্ট নামে পরিচিত ছিল। বিভিন্ন স্টার্টআপের রিমোট জবের কাজের খোঁজ মেলে এই ওয়েবসাইট থেকে।

ড্রিবল
ডিজিটাল ডিজাইননির্ভর বিভিন্ন কাজের সুযোগ পাওয়া যায় ড্রিবলে। ওয়েব ডিজাইনারদের জন্য অনেক সুযোগ আছে এই ওয়েবসাইটে। ডিজাইনাররা নিজেদের পোর্টফোলিও ও কাজের নমুনা এই সাইটে সহজে প্রকাশ করতে পারেন। এটি লিংকডইনে নিজেদের সম্পর্কে লিখেছে, ড্রিবলে ডিজাইনাররা কাজের অনুপ্রেরণা, মতামত ও অন্য ডিজাইনারদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। বিশ্বব্যাপী ডিজাইনারদের সঙ্গে পরিচিতির সুযোগ আছে ড্রিবলে।

গান ডট আইও
পেশাদার ও অভিজ্ঞ প্রোগ্রামারদের সঙ্গে বিভিন্ন কোম্পানিকে যুক্ত করছে এই ওয়েবসাইটটি। এখানে কর্মীদের অন্য পেশাদারেরা সুপারিশ করতে পারেন। খণ্ডকালীন থেকে পূর্ণকালীন বিভিন্ন কাজের খোঁজ আছে এই ওয়েবসাইটে। কারিগরি কাজের জন্য বিভিন্ন সুযোগ সম্পর্কে জানা যায় এই ওয়েবসাইট থেকে।

ভার্চ্যুয়াল ভোকেশনস
ভার্চ্যুয়াল ভোকেশনস ঘরে বসে কাজের জন্য আরেকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। বিভিন্ন কাজের ও কর্মীদের একটি গোছানো ডেটাবেজ আছে বলে ওয়েবসাইটটি সহজে ব্যবহার করা যায়। ২০০৭ সালে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। ৫০ ধরনের কাজের খোঁজ পাবেন এই ওয়েবসাইট থেকে। যাঁরা বাড়ি থেকে কাজ করতে চান, কিংবা চলতি ধারা অনুসারে ডিজিটাল নোমাড হয়ে দূরের কোনো এলাকা থেকে কাজ করতে চান, তাঁদের অনেক সুযোগ দিচ্ছে ওয়েবসাইটটি

স্কিপ দ্য ড্রাইভ
আগ্রহীরা কোনো নিবন্ধন ফির ঝামেলা ছাড়াই এই ওয়েবসাইট থেকে অনায়াসে চাকরির খোঁজ পাচ্ছেন। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন স্টার্টআপ থেকে শুরু করে বড় বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠানের রিমোট জবের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাহকসেবা, হিসাবরক্ষণসহ বিভিন্ন কাজের খোঁজ পাবেন।

জবস্প্রেসো
এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন কাজের খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে। প্রায় ১৫ হাজারের বেশি রিমোট কর্মী এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করেন। তথ্যপ্রযুক্তিসহ মার্কেটিং, কাস্টমার সার্ভিসসংক্রান্ত বিভিন্ন কাজের খোঁজ পাবেন এই ওয়েবসাইট থেকে।

রিমোট ইন ইউরোপ
এই ওয়েবসাইটটি ইউরোপীয়দের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। যাঁরা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে থাকেন, তাঁরা এই ওয়েবসাইট থেকে কাজের খোঁজ করেন।

ক্যারিয়ার ভল্ট
এই ওয়েবসাইট থেকে সফটওয়্যার, তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য, ডিজাইন, ডেটাসহ বিভিন্ন খাতে কাজের খোঁজ মিলছে। বিশ্বব্যাপী শীর্ষস্থানীয় বিভিন্ন কোম্পানি রিমোট কর্মী খোঁজার জন্য এই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করে।

মনস্টার ডটকম
১৯৯৯ সালে দ্য মনস্টার বোর্ড ও অনলাইন ক্যারিয়ার সেন্টারের এক হয়ে মনস্টার ডটকম চালু হয়। এই ওয়েবসাইটটি সারা বিশ্বে রিমোট জবের জন্য অন্যতম জনপ্রিয় সাইট। ওয়েবসাইটটি চাকরিপ্রার্থী ও নিয়োগকারীদের মধ্যে সংযোগ তৈরি করতে একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করে। এই ওয়েবসাইটটি শুধু কাজেরই খোঁজ দেয় না ক্যারিয়ারসংক্রান্ত বিভিন্ন পরামর্শসহ দিকনির্দেশনা দেওয়ার জন্য বেশ জনপ্রিয়।

উই ওয়ার্ক রিমোটলি
উই ওয়ার্ক রিমোটলি বিভিন্ন রিমোট কাজের সুযোগ দিচ্ছে। বিশ্বব্যাপী চাকরিপ্রার্থী ও নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সংযোগ তৈরি করছে। প্রায় ৩২ হাজারের বেশি কাজের খোঁজ আছে এই ওয়েবসাইটে

জবগেদার
জবগেদার আরেকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। বিভিন্ন দেশ ও এলাকাকেন্দ্রিক ভিন্ন ভিন্ন কাজের সুযোগ পাওয়া যাবে এই ওয়েবসাইটে

গুরু ডটকম
গুরু ডট কমের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন ধরনের কাজের সুযোগ পাচ্ছেন। প্রোগ্রামিংসংক্রান্ত বিভিন্ন কাজ থেকে শুরু করে ডিজাইনসংক্রান্ত কাজের সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে এই ওয়েবসাইট থেকে। ফ্রিল্যান্সাররা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নিজেদের দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও ক্লায়েন্ট প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করতে পারেন ওয়েবসাইট থেকে।

ওয়ার্কিং নোমাডস
ওয়ার্কিং নোম্যাডস থেকে নানা ধরনের রিমোট কাজের সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে।  

জাস্টরিমোট
জাস্ট রিমোট আরেকটি রিমোট জবের জন্য জনপ্রিয় ওয়েব প্ল্যাটফর্ম। বিশ্বের নানা প্রান্তের রিমোট জবপ্রত্যাশীরা এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজের সন্ধান পাচ্ছে।

প্যানজিয়ান ডটকম
এই ওয়েবসাইটে ১৫০টির বেশি দেশের ৪ লাখের বেশি রিমোট কাজের খোঁজ আছে।

গ্লাসডোর ডটকম
গ্লাসডোর সান ফ্রান্সিসকোভিত্তিক একটি কোম্পানি। গ্লাসডোরে নিয়মিত কাজের পাশাপাশি রিমোট কাজের বিভিন্ন খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে এই ওয়েবসাইট থেকে। বিভিন্ন করপোরেট ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কাজের খোঁজখবরের পাশাপাশি চাকরির ইন্টারভিউসহ ক্যারিয়ার প্রস্তুতির খোঁজ পাওয়া যাবে এই ওয়েবসাইটে

ইনডিড ডটকম
২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠিত এই ওয়েবসাইট চাকরি খোঁজার পাশাপাশি সিভি তৈরি, চাকরির প্রস্তুতির বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতায় নেওয়ার সুযোগ আছে।

ফ্রিল্যান্সার ডটকম
ফ্রিল্যান্সার বহুল জনপ্রিয় একটি ওয়েবসাইট। ২০০৯ সালে চালু হওয়া এই প্ল্যাটফর্ম থেকে নিয়োগকর্তারা ফ্রিল্যান্সারদের বিডের মাধ্যমে কাজ প্রদান করতে পারেন। এই ওয়েবসাইট বিশ্বের অন্যতম বড় ফ্রিল্যান্সিং ও ক্রাউডসোর্সিং মার্কেটপ্লেস হিসেবে জনপ্রিয়। প্রায় ৬ কোটির বেশি ব্যবহারকারী এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করছে।

ফাইভআর
ফাইভআর আরেকটি জনপ্রিয় বহুজাতিক অনলাইন মার্কেটপ্লেস। এই ওয়েবসাইট ফ্রিল্যান্স সার্ভিসেস মার্কেটপ্লেস হিসেবে জনপ্রিয়। প্রায় ৫০০ শ্রেণির ফ্রিল্যান্স ও রিমোট কাজের খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে এই ওয়েবসাইটে

আপওয়ার্ক
২০১৩ সালে ইল্যান্স এবং ওডেস্ক নামের দুটি ফ্রিল্যান্স প্রতিষ্ঠান এক হয়ে আপওয়ার্কের যাত্রা শুরু করে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও স্বাধীন পেশাজীবীদের সঙ্গে কার্যকর সম্পর্ক তৈরির জন্য আপওয়ার্ক জনপ্রিয়।

ফ্লেক্সজবস
ইনসাইডার মানির তালিকায় সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় ফ্লেক্সজবস ওয়েবসাইট। ২০০৭ সালে ওয়েবসাইটটি চালু হয়। এই প্ল্যাটফর্মের বিভিন্ন কাজের খোঁজ মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে কার্যকরভাবে পাওয়ার সুযোগ আছে।  
সূত্র: ইয়াহু ফাইন্যান্স ও ইনসাইডার মানি

কম্পিউটারের মাধ্যমে যে কাজগুলো করা যায়, তা যত সহজ হোক বা কঠিন, সবই একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনি করতে পারবেন। একদম সহজ থেকে শুরু করিঃ
  • ডেটা এন্ট্রি
  • কাস্টোমার সাপোর্ট
  • ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট
  • লেখালেখি বা প্রুপ রিডিং
  • ট্রান্সলেশন 
  • ভয়েস দেওয়া এবং এডিটিং
  • ভিডিও এডিটিং
  • ছবি তোলা বা ছবি এডিটিং
  • ডিজাইনিং
  • ইউজার ইন্টারফেস এবং ইউজার এক্সপ্রেরিয়েন্স ডিজাইন
  • অ্যাকাউন্টিং রিলেটেড যেকোনো কাজ
  • মাইক্রোসফট অফিসের যে কোন কাজ
  • গেম ডেভেলপমেন্ট
  • সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট
  • ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট
  • মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট
  • যেকোনো প্রোগ্রামিং বা ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কিত কাজ
  • ডেটা এনালাইসিস
  • ডেটা ভিজুয়ালাইজেশন
  • মেশিন লার্নিং
  • ইন্টিলিজেন্ট সিস্টেম ডেভেলপমেন্ট সহ আরো অনেক। 
আপওয়ার্কে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ গুলো
প্রতিটা ক্যাটেগরির মধ্যেই অনেক গুলো সাব ক্যাটেগরি রয়েছে। যেমন Web, Mobile, and Software Development ক্যাটেগরির মধ্যে দেখুন কত ধরনের জব রয়েছেঃ
ওয়েব, মোবাইল এবং সফটওয়ার ডেভেলপমেন্ট রিলেটেড কাজ

এগুলো দেখে একটা ধারনা নেওয়া যাবে অনলাইনে কি কি কাজ পাওয়া যায়, কি ধরনের কাজ পাওয়া যায়। আপনি যদি উপরের যে কোন একটি কাজও পারেন, তাহলে আপনি অনলাইনে কাজ করতে পারবেন। যদিও এ গুলো ছাড়াও আরো অনেক ধরনের কাজ অনলাইনে রয়েছে। আপনাকে তা খুজে নিতে হবে। আপনি যদি এ কাজ গুলোর একটিও ভালো মত না পারেন, তাহলে আপনার কাছে যে বিষয়টা ভালো লাগে এমন একটা কাজ শিখে নিতে পারেন। তারপর আপনি কাজ শুরু করতে পারেন। কাজ শিখে নিতে বেশি সময় লাগবে না। ভয় পেলে বা শুরু না করলে কিভাবে শিখবেন? আজকের দিনটি আপনার প্রিয় বিষয়টি শেখা শুরু করার জন্য কি একটি ভালো দিন নয়?

ফ্রিল্যান্সিং সাফল্য

Scroll to Top

Schedule Appointment

Fill out the form below, and we will be in touch shortly.
Contact Information
Business Information
Preferred Date and Time Selection